1. darilymukitdak@gmail.com : Mukti TV HD : Mukti TV HD
  2. info@muktitv24.com : muktitv :
  3. banglahost.net@gmail.com : rahad :
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

মাহামুদুল হাসানের মজার ছড়া || অশোকেশ সিরিজ

শাকিল আনোয়ার
  • Update Time : শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১
  • ৫০১ Time View

মুক্তি টিভি সাহিত্য আয়োজন || এম. মাহামুদুল হাসান মুক্তি টিভি এইচ ডি অনলাইন পোর্টালের প্রধান সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বরত। তিনি ব্যাক্তিগত জীবনে একজন শিক্ষক। একাধারে কবি, গল্পকার ও ইভেন্ট ক্রিয়েটর। এ পর্বে তার অশোকেশ সিরিজের চারটি ছড়া প্রকাশ করা হয়েছে। যা বিভিন্ন সময়ে সমাজে বিভিন্ন সময়ের প্রেক্ষিতে লেখা।

(১)
একদিন অশোকেশ উঠে এক গাড়িতে
খুব বেশি তাড়া নিয়ে ফিরে যাবে বাড়িতে।
বসে ভাবে পাশে রাখা খালি তার সীটটি।
কে বসিবে পাশে এসে সেই দিকে দৃষ্টি।

উঠে এলো ইয়া বড়ো দেহ নিয়ে কাকু এক
কাছে এসে মোটা সুরে, “পাশে রাখা কার ব্যাগ”?

পড়ে যায় অশোকেশ মহা এক ভাবনায়
এই কাকু যদি আজ পাশাপাশি বসে যায়।
ভাবিতে সে খাবি খায় যায় যদি প্রান যায়
লোক আছে বলে বসে , এইবার বেঁচে যায়।

ভাবনায় অশোকেশ বসে মাথা চুলকায়
পাশে কাকু দাড়িয়ে বাটা ভরে গুল খায়।
মনে মনে অশোকেশ ডাকে তার ঠাকুরে
যদি কেউ না আসে কি বলবে কাকুরে।

ইতি মাঝে আসে এক চুল পাঁকা দাদিমা
কোন কিছু না বলে সে গেল সোজা বসিয়া।
পিছু ধেয়ে এল তার এক জোড়া নাতনি
মাঠে মারা গেল তার সবটুকু খাটনি।

সীটে বসে অশোকেশ ডানে বায়ে তাকিয়ে
গলাটাকে নিল তার একটুকু খাঁকিয়ে।
গাড়ি জুড়ে শুরু হল আতরের গন্ধ
অশোকেশ ভেবে বলে লাগছেনা মন্দ।

দাদিমাতো গুলুগুলু বাঁটা ভরে এনে পান
হাতে গুঁজে দিয়ে বলে ভাইজান এটা খান।
নাতনিরা বসে গেছে দুসীটের মাঝেতে
অশোকেশ পড়ে গেল মাইনক্যা চিপাতে।

নাতনিরা ধরে বসে চিপসের বায়না
দাদী বলে ছি: ছি: এই সব খায়না।
কে শোনে কথা কার জুড়ে দিল কান্না।
ফোঁকলায় দাদী হেসে বলে ভাই যান না।

খানিক সময় বাদে গাড়ী হলো পূর্ণ
অশোকেশ এই বুঝি ভেঙে হলো চূর্ণ।
চাপাচাপি ঠাসাঠাসি যাত্রির কোলাহল
অশোকেশ বাবু বুঝি ঘোলা করে খেল জল।।
(২৪/০২/২০২০)

(২)

এইবার অশোকেশ করে বড়ো চালাকি
দুই সিট পিছে বসে করিলো সে ম্যালা কি!
দাদি মা কে খুঁজছে নয়তো অবুঝ সে,
ইয়া মোটা কাকুকে এড়াবে সে ঝাঁকি খে।

অশোকেশ ভেবে দেখে সিট রেখে দুইটা
খানিক সময় পরে হারালো সে খেইটা।
দুমাদুম উঠে পড়ে হিজড়ার দল এক
পাশে সীটে শুধু নয় চারি পাশে চেয়ে দেখ।

এই সালা বের কর টাকা কড়ি আছে যা
ব্যাত্তয় হলে পড়ে তালি দিয়ে ঝাড়ি খা।
বাড়িতে কি আছে তোর বউ, ঝি, বোন টা
চেয়ে দেখ দিয়ে দিব খালি এই মোনটা।

অশোকেশ পড়ে গেল মহা এক ভাবনায়
হিজড়ার দল বুঝি জোর করে সব নেয়,
ভাবনায় অশোকেশ মাথা বসে চুলকায়
তারচেয়ে ভাল ছিল কাকু বসে গুলখায়।

এর চেয়ে দাদি মা টা ফের যদি আসতো
অশোকেশ সিট ছেড়ে চেপে গিয়ে বসতো,
এই ব্যাটা ভাবছো কি? বকা খেয়ে অশোকেশ
চিন্তায় খসে পড়ে দু ‘একটা পাকা কেশ।

বলতেই পাকেটেতে হাত খানি ঢুকিয়ে
অশোকেশ মামলাটা একেবারে চুকিয়ে,
গালে ধরে মেরে টিপ হিজড়ার দলটি
হাই বলে চলে গেল পাড়ে পড়া মলটি।

পকেটেতে হাত দিয়ে অশোকেশ হায়হায়
একশো তিরিশ টাকা হারিয়ে সে নিরুপায়।

বাস ভাড়া দিতে গিয়ে অশোকেশ বিপাকে
মোবাইল টা হাতে নিয়ে ফোন দিল দিপাকে।
ফোন পেয়ে দিপা বলে আসো আজ বাড়িতে,
দেখাবো কে দেয় তোর চাল আজ হাড়িতে!!
(১২/০৩/২০২০)

(৩)
অশোকেশ চারিদিকে দেখে কতো কাহিনী
সকালে বিকেলে আসে সরকারী বাহিনী।
করোনায় চিত্রটা দেখে বড়ো হাসি পায়
মাস্কপড়ে দাড়োয়ান ফুটো দিয়ে বিড়ি খায়।

হাতে আছে হাতমোজা নেই কোন চিন্তা
সারাদিন কেটে যাবে এই ভাবে দিনটা।
হাতমোজা দিয়ে চাচা আম খায় ছিলিয়ে
কাঠালের কাজ শেষ ধুমধাম কিলিয়ে।

দাম বাড়ে সাবানের সাথে সেনিটাইজার
রাস্তার দোকানিটা হয়ে গেল রাইডার।
অশোকেশ দ্যাখে এক চকিদার দাড়িয়ে
কোনকিছু বলে গেল গলাখানি বাড়িয়ে।

ঘরেতে কাটেনা মন লকডাউন চলছে
রাস্তার মোড়ে এসে সেই কথা বলছে।

প্রতিদিন আপডেটে করোনার হালচাল
টিভি খুলে অশোকেল হয়ে যায় বেশামাল।
এভাবে যে চলেনা ঘরে থাকি কতকাল?

নকলের ধুম চলে করোনার সনদে
ছাগলটা রুপ নেয় ঘাড়ত্যাড়া বলদে।
অশোকেশ ভেবে বলে গ্যাছে আজ দেশটা
কখোনো কি ভেবেছো কোথা এর শেষ টা?
(১০/০৭/২০২০)

(৪)
অশোকেশ বাজারেতে গিয়ে কিনে সবজি
মাস্ক দিয়ে নাক ঢাকে, মোজাতে সে কব্জি,
রিক্সায় বসে ভাবে এই বুঝি সারছে
ভাইরাস করোনায় শরীরটা ভরছে।

মাস্ক খুলে হাত ধুয়ে পানি রাখে জগেতে
ঘরোনির ঝুঁকি বাড়ে বাজারের ব্যাগেতে,
একে একে বের করে ব্যাগে ভরা সবজি
অশোকেশ চেয়ে দ্যাখে বউ খোলা কবজি।

ঘরে এসে পোষাকের লাগে এক গোলমেল
কোনটাকে আগে ছাড়ে এই নিয়ে তালগোল,
অবশেষে খুঁজে পায় দারুন এক বুদ্ধি
বাথরুমে ঢুকে পরে প্যান্ট সার্ট শুদ্ধি,

ক্ষনিক পরেই ভাবে এ কি আমি করলাম?
খালি হাতে বাথরুমে হাতল টা ধরলাম!
হাতে থাকা সাবানের ফেনা দিয়ে নিমিষে
ধুয়ে মুছে করে সাফ ধরেছে যে জিনিসে।

এইভাবে প্রতিদিন চলে তার যুদ্ধ
সাফ করে বাথরুম ঘরদোর শুদ্ধ,
সারা ঘরে ছিটাবে সে ব্লিচিং পাউডার
ডেটলের পানি দিয়ে মুছে ফেলে রাউডার।

অশোকেশ প্রতিদিন রাত-ভোর মিটিয়ে
স্যাভলন পানি নিয়ে সারা ঘরে ভিজিয়ে,
বউ বলে ওরে সোনা আর জল ধরো না
অশোকেশ ভয় পায় যদি আসে করোনা।

হাঁচি দিয়ে অশোকেশ মুখ ঢাকে কনুতে
পেট তার আগে বাড়ে প্রতি দিনে মেন্যু তে,
বউ তারে কাছে পেয়ে হয়ে গেছে গিন্নি
হররোজ করে ফেলে ভাঁজা পোড়া, ফিরনি।

অশোকেশ খেয়ে পান, গান ধরে আরামে
টিভি ছাড়ে প্রতিদিন সিনেমার ব্যারামে,
নেই তার কোন কাজ আহ সে কি অবসর!
সবিনয়ে নিবেদন সবে মিলে থেকো ঘর।

[ আমাদের সাপ্তাহিক কবিতার আসরে আপনিও পাঠাতে পারবেন আপনার লেখা কবিতা। আমাদের কাছে লেখা পাঠাতে ইমেইল- muktitvhd@gmail.com অথবা ফোন করুন 01712973830 নাম্বারে ]

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category